12.1 C
London
May 21, 2024
TV3 BANGLA
Uncategorized

ট্রাম্প-বাইডেনের বিতর্কে বিশ্ব মিডিয়ার প্রতিক্রিয়া

টিভিথ্রি ডেস্ক: মার্কিন প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প ও জো বাইডেনের তিনটি বিতর্কের প্রথমটি ‘সহ্য’ করেছেন সেদেশের ভোটাররা। মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) রাতে হোয়াইট হাউসের ইতিহাসে অন্যতম বিশৃঙ্খল ও বিদ্বেষপূর্ণ বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন এ দুই প্রার্থী। আর তা নিয়ে শুরু হয় সমালোচনার ঝড়। দর্শকদের মধ্যেও বিপুল আগ্রহ দেখা গিয়েছে এ বিষয়েে।

বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম ও উপস্থাপকেরা বিতর্কের সুর ও কৌশল নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা করেছেন। যুক্তরাজ্যের দ্য টাইম পত্রিকা লিখেছে, ‘ট্রাম্প ও বাইডেনের বিতর্কে পরাজিত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।‘

দ্য গার্ডিয়ান ইভেন্টটিকে ‘জাতীয় অবমাননা’ হিসেবে বর্ণনা করেছে। এতে আরও বলা হয়, বাকি বিশ্বের ভবিষ্যত ইতিহাসবিদরা যখন এই ফুটেজ দেখবেন তখন কেঁদে ফেলবেন।

ইতালির লা রিপাবলিকার মার্কিন সংবাদদাতা লিখেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতি আগে কখনো এতটা ডুবে যায়নি। বিতর্কটি ছিল বিশৃঙ্খল, দুর্বোধ্য এবং অবজ্ঞাসূচক।

ট্রাম্পকে ‘পুতিনের কুকুর’ উল্লেখ করে বাইডেনের মন্তব্য নিয়ে আলোচনার ঝড় বইছে রাশিয়ার সোশ্যাল মিডিয়ায়। একজন টুইটারে লিখেছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট পদের জন্য কে বেশি যোগ্য সেটা প্রমাণে নেমেছেন দুই প্রবীণ ব্যক্তি। কিন্তু পুতিনকে ছাড়া তাদের রেটিং বাড়ানো সম্ভব হচ্ছে না।

এদিকে চীনা সংবাদমাধ্যমগুলো বিতর্কের বিষয়টি উপেক্ষা করে গেছে। তবে দুই-একটা পত্রিকা লিখেছে, কীভাবে এই দুই ব্যক্তি বিতর্কে প্রতিপক্ষকে আক্রমণ করতে গিয়ে চীনকে ব্যবহার করেছে। রাষ্ট্র পরিচালিত গ্লোবাল টাইমস লিখেছে, এটি সর্বকালের সবচেয়ে বিশৃঙ্খল রাষ্ট্রপতি বিতর্ক। কোভিড-১৯ মহামারী এবং মার্কিন অর্থনীতির দুর্দশার জন্য চীনকে দোষারোপের কারণে ট্রাম্পের সমালোচনা করা হয় এতে।

ভারতের জনপ্রিয় ইংরেজি সংবাদপত্র টাইমস অব ইন্ডিয়া এই বিতর্ককে ‘কর্দমাক্ত মাঠে কুস্তি’ খেলার সঙ্গে তুলনা করেছে। এতে লিখেছে, বিশ্ববাসীর কাছে বিব্রত হওয়ার আগে নিজেরাই ১০০ মিনিট ধরে যুক্তরাষ্ট্রকে বিব্রত করে ছেড়েন এই দুই ব্যক্তি।

জানা যায়, ওহিও অঙ্গরাজ্যের ক্লিভল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ওই বিতর্কে মহামারি, শেতাঙ্গ আধিপত্যবাদ এবং অর্থনীতি নিয়ে তর্ক ক্রমেই চিৎকার-চেঁচামেচিতে রূপ নেয়।

এক পর্যায়ে বাইডেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে ‘ক্লাউন’ বলে বিদ্রূপ করেন এবং তাকে ‘চুপ করতে’ বলেন। অন্যদিকে, ট্রাম্পও কম যান না। তিনি বাইডেনের ছেলের মাদক সেবনের বিষয়টি তুলে আনেন।

বর্ণবাদ এবং শেতাঙ্গ আধিপত্যবাদ নিয়ে তুমুল বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন ট্রাম্প ও বাইডেন। বাইডেন বলেন, ‘ইনি এমন একজন প্রেসিডেন্ট, যিনি সবকিছুকে বর্ণবাদী ঘৃণা ও বিভেদ তৈরিতে ব্যবহার করেছেন। ’

বাইডেনের বক্তব্যের সময় বারবার বাধা দিচ্ছিলেন ট্রাম্প।

করোনা ভাইরাস বিষয়ে বাইডেন বলেন, ‘মহামারি নিয়ে আতঙ্কিত ছিলেন ট্রাম্প। ’

তিনি বলেন, ট্রাম্প আরও ‘স্মার্ট’ না হলে, আরও বেশি মানুষের মৃত্যু হতে যাচ্ছে। এদিকে, ‘স্মার্ট’ শব্দের ব্যবহারে রেগে যান ট্রাম্প।

মতামত জরিপের ফলাফল অনুযায়ী, ট্রাম্পের চেয়ে কিছুটা এগিয়ে রয়েছেন বাইডেন। এদিকে নির্বাচনের বাকি আর মাত্র এক মাস।

১ অক্টবর ২০২০
এনএইচ

আরো পড়ুন

রাজনীতি-সাংবাদিকতা করতে পারবে না সৌদি প্রবাসীরা

অনলাইন ডেস্ক

অবশেষে ট্রাম্পের পরাজয় স্বীকার

অনলাইন ডেস্ক

যুক্তরাজ্যে দৈনন্দিন পণ্যের দাম বাড়তে পারে বলে হুঁশিয়ারী

অনলাইন ডেস্ক