2.5 C
London
March 4, 2024
TV3 BANGLA
আন্তর্জাতিক

যুদ্ধবিধ্বস্ত গাজার নিউটন ১৫ বছরের কিশোর হাসসাম আল-আত্তা

হাসসাম আল-আত্তা যুদ্ধবিধ্বস্ত ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড গাজার ১৫ বছর বয়সী এক কিশোর। যে কিনা গাজার নিউটন হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে একেবারে মৌলিক পদ্ধতিতে ছোট পরিসরে বিদ্যুৎ উৎপাদন করে। ইসরায়েলি হামলার কারণে অন্ধকারে ছেয়ে যাওয়া গাজায় হাসসামের মতো উদ্যমী কিশোরেরাই যেন আশার আলো জ্বালিয়ে রেখেছে।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইসরায়েলি হামলায় গাজার বেশির ভাগ আবাসিক ভবনই মাটির সঙ্গে মিশে গিয়েছে। বিদ্যুৎ অবকাঠামো একপ্রকার বিধ্বস্ত হয়ে গিয়েছে। এই অবস্থায় পকেট ডায়নামো আর টিনের পাখা ব্যবহার করে ছোট পরিসরে বিদ্যুৎ উৎপাদন করেছেন হাসসাম আল-আত্তা।

আল জাজিরাকে হাসসাম আল-আত্তা বলেছে, ‘আমার এলাকার সবাই আমাকে গাজার নিউটন বলে ডাকে। যুদ্ধের কারণে আমি যেখানে থাকি, সেখানে কোনো বিদ্যুৎ নেই। তাই আমি আমার সাধ্যমতো এখানে আলো জ্বালানোর চেষ্টা করেছি।’

হাসসাম আরও বলে, ‘আমি বাজার থেকে ১ শেকেল (ইসরায়েলি মুদ্রা) দিয়ে একটি পকেট ডায়নামো কিনে আনি। সাধারণত, যখন একটি ডায়নামোকে ঘোরানো হয়, তখন এর সাহায্যে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যায়। এই মূলনীতি অনুসরণ করে আমি আমাদের বাড়ির চালে একটি ডায়নামো স্থাপন করি এবং এটির সঙ্গে একটি পাখা যুক্ত করে দিই। বাতাসের সাহায্যে এই পাখা ঘুরলে ডায়নামো থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদিত হয়।’

হাসসাম আল-আত্তা জানায়, বাতাস থাকলে পাখা ঘোরে এবং বিদ্যুৎ উৎপাদিত হয়। গাজার এই উদ্যমী কিশোর বলে, ‘আমাদের যদি ব্যাটারি থাকত, তাহলে হয়তো সেগুলোকে রিচার্জ করে রেখে আরও বেশি বিদ্যুতের চাহিদা মেটানো যেত। আমরা অল্প করে হলেও ২৪ ঘণ্টাই বিদ্যুতের সুবিধা পেতাম।’

গাজার এই নিউটন জানায়, মূলত তার বড় ভাইয়ের দুই যমজ সন্তানের রাতে জেগে উঠে কান্না করার বিষয়টি থেকে সে পকেট ডায়নামো দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদনের চিন্তা করে। কারণ, এই শিশু দুটি রাতের অন্ধকারে খুবই ভয় পায় এবং জেগে উঠে আলো না পাওয়া পর্যন্ত কাঁদতে থাকে। কিন্তু এখন তারা জাগলেই আলো দেখতে পায় এবং খুব দ্রুত ঘুমিয়ে পড়ে। তারা এখন আর অন্ধকারের ভয়ে ভীত নয়।

গাজার যুদ্ধবিধ্বস্ত পরিস্থিতি নিয়ে হাসসাম আল-আত্তা জানায়, আমাদের কোনো খাট নেই, কোনো কম্বল নেই, মাটির উপর ফেলা বিছানায় আমাদের ঘুমাতে হয়। আমরা উত্তর গাজা থেকে হেঁটে রাফায় পৌঁছেছি। কয়েকটি কম্বল আর পরিধানের কাপড় ছাড়া আর কিছুই নেই আমাদের।

ইসরায়েলি গানবোট আর যুদ্ধবিমানের গর্জন রাফার আশ্রয়শিবিরের শিশুদের ভীত করে তোলে উল্লেখ করে হাসসাম বলে, যুদ্ধবিমান ও গানবোটের আওয়াজ আমাকেও ভীত করে। যেন আমাদের তাঁবুর ঠিক পাশেই গোলাবর্ষণ করছে ইসরায়েলি গানবোট ও যুদ্ধবিমানগুলো।

গাজায় হাসসামের মতো আরও শত শত উদ্যমী, উদ্ভাবনী ক্ষমতাসম্পন্ন কিশোর আছে। এ বিষয়ে হাসসাম বলে, ‘আমার মতো শত শত উদ্ভাবনী ক্ষমতাসম্পন্ন কিশোর আছে গাজায়। কিন্তু কেউই তাদের দিকে নজর দেয় না, কাজের প্রশংসা করে না।’ আরব বিশ্বের দেশগুলো ও বিশ্ব সম্প্রদায়কে গাজায় যুদ্ধ বন্ধের আহ্বান জানিয়ে এই কিশোর আরও বলে, ‘আমরা আমাদের স্বপ্নগুলো বাস্তবায়ন করতে চাই।’

সূত্রঃ আল জাজিরা

এম.কে
০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

আরো পড়ুন

গাজায় শুক্রবার সকাল হতে যুদ্ধবিরতি ও জিম্মি মুক্তি শুরু

খাবার পানি সংকটে বিশ্ব

ইটালি এবং ফ্রান্স সীমান্তে সক্রিয় মানবপাচার চক্র