12.2 C
London
April 14, 2024
TV3 BANGLA
আন্তর্জাতিকশীর্ষ খবর

আফগানিস্তানে বৃটিশ বাহিনীর বেআইনি হত্যার অভিযোগে তদন্ত শুরু

আফগানিস্তানের বৃটিশ সেনা সদস্যেদের হাতে কথিত বেআইনি হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে বৃটেনে এক তদন্ত শুরু হয়েছে এবং এই তদন্ত কমিটির প্রধান বলেছেন, “সামরিক বাহিনী এবং দেশের সুনাম রক্ষার” জন্য এই তদন্ত খুব গুরুত্বপূর্ণ।

লর্ড জাস্টিস হ্যাডন-কেভ বৃটিশ সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযোগগুলোকে “অত্যন্ত গুরুতর” বলে বর্ণনা করেন।

দু’হাজার দশ সালের মাঝামাঝি থেকে ২০১৩ সালের মাঝামাঝি সময়ে আফগানিস্তানে মোতায়েন বৃটিশ স্পেশাল ফোর্সেস (কমান্ডো) বাহিনীর পরিচালিত রাতের বেলার অভিযানগুলির ব্যাপারে এই তদন্তে অনুসন্ধান চালানো হবে।

আইন বহির্ভূত হত্যা এবং সেগুলিকে পরবর্তীকালে ধামাচাপা দেয়া – দুটি অভিযোগই এই তদন্ত কমিটি খতিয়ে দেখবে।

বুধবার থেকে এই তদন্তের কাজ শুরু হয় এবং লর্ড জাস্টিস হ্যাডন-কেভ এ ব্যাপারে প্রাসঙ্গিক তথ্যসহ এগিয়ে আসার জন্য জনসাধারণের প্রতি আহ্বান জানান।

লর্ড জাস্টিস হ্যাডন-কেভ, ” যে আইন ভঙ্গ করেছে তাকে তদন্তের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হবে। এবং একইভাবে, যারা কোন দোষ করেননি তাদের মাথার ওপর থেকেও সন্দেহের কালো মেঘ দূর করতে হবে” ।

বৃটিশ গণমাধ্যমের প্রতিবেদনগুলিতে প্রকাশ পেয়েছে যে আফগানিস্তানে ছয় মাস দায়িত্ব পালনকালে বৃটিশ কমান্ডো বাহিনীর একটি স্কোয়াড্রনের হাতে সন্দেহজনক পরিস্থিতিতে কমপক্ষে ৫৪ জন আফগান নিহত হয়েছেন।

কমান্ডো বাহিনীর বিশেষভাবে ডেলিবারেট ডিটেনশন অপারেশন বা ডিডিও নামে পরিচিত নৈশ অভিযানের দিকে এই তদন্ত কমিটি নজর দেবে।

লর্ড জাস্টিস হ্যাডন-কেভ জানান, তদন্তের অনেক শুনানির প্রকৃতি “অত্যন্ত সংবেদনশীল” হওয়ার কারণে শুনানির গোপনীয়তা বজায় রাখা হবে।

ডিডিও-তে বৃটিশ বাহিনীর হাতে নিহত দুই পরিবারের আইনি চ্যালেঞ্জও তদন্তে খতিয়ে দেখা হবে।

আফগান কৃষক আব্দুল আজিজ উজবাকজাই, যার ছেলে এবং পুত্রবধূকে ২০১২ সালে এক নৈশ অভিযানে বৃটিশ স্পেশাল ফোর্সেসের সদস্যরা হত্যা করেছিল এবং যার নাতি ইমরান এবং বিলাল ঐ অপারেশনে গুরুতরভাবে আহত হয়েছিল।

উজবাকজাই বলেছেন, এই তদন্ত “আমার ছেলে ও পুত্রবধূ, এবং ইমরান ও বিলালের বাবা-মাকে তাদের কাছে ফিরিয়ে আনতে পারবে না। কিন্তু ১১ বছর পর আমি এখনও চাই যে বৃটিশ সৈন্য এবং অন্যান্য কর্মকর্তারা এগিয়ে এসে সত্য প্রকাশ করুক। আমরা এখনও জানিনা কেন আমাদের টার্গেট করা হয়েছিল এবং আমরা এটা জানতে চাই।”

ডিডিওতে নিহতদের পরিবারের কিছু সদস্যের প্রতিনিধিত্ব করেছে একটি আইনি প্রতিষ্ঠান লেই ডে। এর একজন পার্টনার টেসা গ্রেগরি বলছেন, তার ক্লায়েন্টরা এই তদন্তের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে।

আরো পড়ুন

সাত দিনে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রীর বিমান ব্যয় ৬ কোটি টাকা

নিউজ ডেস্ক

বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস: বাংলাদেশি সাংবাদিকদের পাশে দাঁড়াতে জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান

পুতিনের বেশে অন্তত তিনজন, দাবি ইউক্রেনের গোয়েন্দাদের