5.6 C
London
March 27, 2023
TV3 BANGLA
Uncategorized

চীনের মুসলিমরা কেমন আছে

বেইজিং এর নিউচিয়ে মসজিদে ঈদের নামাজ শেষে লেখক

শুক্রবার। জুম্মার নামাজ পড়তে যাচ্ছি। মসজিদ কোনদিকে সেটা জানার চেষ্টা করছি। শুনেছি এদিকে একটি মসজিদ আছে। একটু এগোতেই দেখলাম মাথায় টুপি পরে বেশ কয়েকজন বয়স্ক চীনা পুরুষ হেঁটে যাচ্ছেন। বুঝলাম এদের অনুসরণ করলেই মসজিদের খোঁজ পাওয়া যাবে।

ঘটনাটি কুনমিং শহরের উপকণ্ঠ ছেংকংয়ে। এখানে রয়েছে একটি মুসলিম অধ্যূষিত এলাকা। নাম হুইহুই ইন। ইন মানে গ্রাম। এলাকাটির নামের অনুবাদ করলে বোঝায় হুইদের গ্রাম। তবে নামে গ্রাম হলেও এখন এটি শহরের পৌরসভার এলাকার মধ্যেই। সকল নাগরিক সুযোগ সুবিধাই এখানে রয়েছে। 

বিশাল দেশ চীন। এখানে রয়েছে ৫৬টি জাতিগোষ্ঠি। এদের মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠ হলো হান জাতি। অন্যান্য জাতির মধ্যে ১২টি জাতির মানুষ ইসলাম ধর্ম  অনুসরণ করে। তাদের নিজস্ব সংস্কৃতিও রয়েছে। উইঘুর, তাজিক, আফগান, হুই এমন অনেক জাতিগোষ্ঠি রয়েছে যারা তাদের নিজস্ব সাংস্কৃতিক বৈশিষ্ট্য অনুসরণ করে এবং ধর্ম হিসেবে ইসলামকে মেনে চলে।

সারা চীনে দুই কোটির মতো বিভিন্ন জাতির মুসলিম রয়েছে। শিনচিয়াং স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চলে উইঘুরসহ অন্যান্য কয়েক জাতির মুসলিম আছে। ইউননান প্রদেশেও হুইসহ অনেক জাতির মুসলিম রয়েছে।

বেইজিং, কুনমিং, গুয়াংজো (চীনা উচ্চারণে কুয়াংচোও, আগে এই শহরের নাম ছিল ক্যান্টন), সাংহাই, উরুমছি ইত্যাদি সব বড় শহরেই একাধিক মসজিদ রয়েছে। আছে মুসলিম অধ্যূষিত পাড়া বা মহল্লা। বিভিন্ন শহরে রয়েছে বড় মসজিদ, যেখানে ঈদের জামাত হয়। আরও পাড়া মহল্লায় আছে ছোট ছোট মসজিদ। যেখানে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ এবং জুম্মা পড়া হয়।

আমি এই লেখায় আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা তুলে ধরবো। প্রথমেই বলি বেইজিংয়ের সবচেয়ে বড় মসজিদটির কথা।

বেইজিংয়ে যে এলাকায় সবচেয়ে বেশি সংখ্যক মুসলমানের বাস সে এলাকার নাম নিউচিয়ে। নিউ মানে গরু আর চিয়ে মানে রাস্তা। ‘গরুর রাস্তা’ নামকরণের উদ্দেশ্য হলো এখানে গরু জবাই হয় এবং গরুর মাংসের এবং বিভিন্ন হালাল মাংসের রেস্টুরেন্ট রয়েছে এ কথাটি বুঝানো।

এখানে রয়েছে একটি বড় সুপার মার্কেট। এই সুপার মার্কেটটি মুসলিমদের মালিকানায়, তাদের দ্বারা পরিচালিত। এখানে বিক্রি হয় বিভিন্ন রকম হালাল মাংস এবং অন্যান্য সামগ্রী। যখন আমি বেইজিংয়ে ছিলাম (২০১১-১২) তখন প্রায়ই এখান থেকে জবাই করা মুরগি, গরু বা খাসির মাংস কিনতাম। মাংসের তৈরি ফ্রোজেন কাবাব, চপ ইত্যাদিও কিনতাম। এই এলাকার একটি রেস্টুরেন্টেও প্রায়ই খেতাম।

নিউচিয়েতে রয়েছে বেইজিংয়ের সবচেয়ে বড় মসজিদ। এর নাম নিউচিয়ে মসজিদ। এটি বেইজিংয়ের সবচেয়ে পুরনো মসজিদও বটে।

নিউচিয়ে মসজিদ উত্তর চীনের সবচেয়ে বড় মসজিদ। ৯৯৬ সালে লিয়াও রাজবংশের সময় এটি প্রথম নির্মিত হয়। সে সময় এই এলাকায় যে স্থানীয় মুসলমানরা ছিল তারা নিজেদের উদ্যোগে এটি তৈরি করে। ঐতিহ্যবাহী চীনা স্থাপত্যরীতিতে এর বাইরের অংশ নির্মিত হয় আর ভিতরে আরবি রীতিতে ক্যালিওগ্রাফির ব্যবহার করা হয়। এর নকশা করেছিলেন নাজারুদ্দিন নামে এক মুসলমান স্থপতি। তিনি ছিলেন মসজিদের ইমামের ছেলে। চেঙ্গিস খানের সেনাবাহিনী ১২১৫ সালে চীন আক্রমণের সময় এই মসজিদ ধ্বংস করে ফেলে। পরে অবশ্য এখানে আবার মসজিদ নির্মাণ হয়। পরবর্তীতে মিং রাজবংশের সময় ১৪৪৩ সালে মসজিদটি পুনর্নিমিত হয়।

ছিং রাজবংশের সম্রাট খাংশির সময়(১৬৬১-১৭২২) এর অনেক অংশ পুনর্নিমিত হয় এবং অনেক অংশ বাড়ানো হয়। চীনের কমিউনিস্ট সরকারের আমলেও মসজিদের অনেক অংশ নির্মাণ হয়েছে। বর্তমান সরকারও মসজিদটি আরও বাড়ানোর পরিকল্পনা নিয়েছে। একহাজার বছরের বেশি সময় ধরে এলাকাটি মুসলমানদের আবাসস্থল। বর্তমানে এই এলাকার আশপাশে প্রায় দশহাজার মুসলিম বসবাস করে।

ইউয়ান রাজবংশের আমলেও এখানে নামাজ পড়া হতো। ইউয়ান রাজবংশ হলো মঙ্গোল রাজবংশ। যারা চেঙ্গিস খানের বংশধর। মঙ্গোলিয়ার স্তেপভূমি থেকে আগত খান-ই-খানান(খানদের প্রধান) চেঙ্গিস খানের সময় মঙ্গোলরা নিজেদের গোত্রধর্মের অনুসারী থাকলেও খরেজমের মুসলমানদের সংস্পর্শে এসে তাদের কিছু অংশ ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে। আবার চেঙ্গিসের বংশধর ইউয়ানরা চৈনিকদের সংস্পর্শে এসে বৌদ্ধধর্ম গ্রহণ করে। ফলে মঙ্গোল, তৈমুর বংশীয়, তুর্কি, জাগতাই, কিরঘিজ, সমরখন্দীয়, পারসীয় ও ইরানীয় মিলে মধ্যযুগে মধ্যএশিয়া, ভারতবর্ষ, ইরান ও চীন সর্বত্রই মুসলমান ধর্মের অনুসারী অনেক মানুষ ছিল।

এখানে ঈদের জামাত অনেক বড় হয়। আমি এই মসজিদে জুম্মার নামাজ পড়েছি, ঈদের নামাজও পড়েছি।

শিনচিয়াংয়ের রাজধানী উরুমছিতে মুসলিম অধ্যূষিত এলাকায় বাংলাদেশের মিডিয়া টিম

নারীপুরুষ সকলে এক মসজিদেই নামাজ পড়ে। তবে নারী-পুরুষের কাতারের মাঝখানে একটু জায়গা রয়েছে। অনেক সময় পাশ্চাত্য ধরনের পোশাকের সঙ্গে মাথায় একটি টুপি পরে বা ওড়নায় মাথা জড়িয়ে নামাজ পড়ে নারীরা। অনেকে আবার শার্টপ্যান্টের সঙ্গে হিজাব পরে নেয়।  বাংলাদেশী, ভারতীয় ও পাকিস্তানি মহিলারা সালোয়ার কামিজ পরে আসে। শীতের দিনে আমিও প্যান্ট শার্ট সোয়েটারের সঙ্গে মাথায় টুপি দিয়ে চলে আসতাম নামাজ পড়তে।

ঈদের সময় অবশ্য সাবওয়ে থেকেই বিশেষ উৎসবের আমেজ টের পাওয়া যায়। দলে দলে মুসলিম নারী পুরুষ শিশু বৃদ্ধ সবাই হেঁটে যেতে থাকে মসজিদের দিকে। ঈদের দিন এই রাস্তায় গাড়ি চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। মসজিদে নামাজ পড়তে যাওয়ার পথে রীতিমতো ভিড়। ঈদের সময় নারীরা মসজিদের ভিতরের অংশে নামাজ পড়েন আর পুরুষরা বাইরের প্রাঙ্গনে। মসজিদটি বিশাল। এর অনেকগুলো অংশ। প্রায় দশ হাজার বর্গ মিটার এলাকা নিয়ে মসজিদ। মধ্যএশীয় এবং হান চৈনিক স্থাপত্যরীতির মিশ্রণ ঘটেছে এখানে। মূল প্রার্থনা ঘরটি ৬০০ বর্গমিটার আকৃতির। এখানে একহাজার মানুষ একসঙ্গে নামাজ পড়তে পারে। এখানে একটি পাথরের কোরান শরীফ রয়েছে। আরও অনেক প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন রয়েছে। ফলে নিউচিয়ে মসজিদ বেইজিংয়ের একটি পর্যটন স্থান। তবে নামাজের সময় এখানে অমুসলিমরা প্রবেশ করতে পারে না।

ঈদের সময় মসজিদের চারপাশের রাস্তায় ঈদের মেলা বসে। বেশ বড় মেলা। এখানে মূলত খাদ্য সামগ্রী বিক্রি হয়।

মেলায় গিয়ে দেখলাম মুসলমানদের বিভিন্ন জাতির ঐতিহ্যবাহী খাবার বিক্রি হচ্ছে দেদার। সেইসঙ্গে নানা রকম হালাল খাদ্য বিক্রি হচ্ছে। শুধু মুসলমানরা নয়, অমুসলিমরাও কিনছে। শ্বেতাঙ্গ, কৃষ্ণাঙ্গ পর্যটক এসেছে অনেক।মেলায় জামা কাপড় থেকে শুরু করে অন্যান্য সামগ্রীও রয়েছে। বেইজিংয়ের বিভিন্ন এলাকায় আরও অনেক মসজিদ রয়েছে।

তখন আমি কাজ করতাম চীন আন্তর্জাতিক বেতারে। সেটি বেইজিংয়ের শিজিংশান এলাকায়। এই এলাকায় কাছাকাছি একটি মুসলিম কমিউনিটি রয়েছে। সেখানে মসজিদ আছে। সেই মসজিদেও অনেকবার জুম্মার নামাজ পড়েছি। বেইজিংয়ের সব এলাকাতেই হালাল রেস্টুরেন্ট রয়েছে। মোটামুটিভাবে বলা যায় যেখানে দশটি রেস্টুরেন্ট আছে সেখানে একটি মুসলিম রেস্টুরেন্ট থাকবেই।

(প্রথম প্রকাশিত চায়না মিডিয়া গ্রুপের ওয়েবসাইটে)


২৫ আগস্ট ২০২০

আরো পড়ুন

Amnesty for Undocumented Migrants, Abu Sayem and Nashit Rahman London

নিউইয়র্ক মৃত্যুপুরী: আসলে কি হচ্ছে?

Spirit of Cricket with Ratan ll Episode 03 ll Rajin Salah