1. robin.nasif@live.com : নিউজ ডেস্ক :
  2. farjulcreative@gmail.com : নিউজ ডেস্ক : Farjul Islam
  3. mh2mukul@gmail.com : নিউজ ডেস্ক : M Moinul Hossain
  4. nh.tiash@gmail.com : Nawshad Tiash : Nawshad Tiash
সুগন্ধা নদীতে লঞ্চে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড TV3 BANGLA
রবিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২২, ১১:৩১ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ খবর
মর্টগেজ ভ্যালুয়েশন কি এবং এটি কিভাবে কাজ করে? যুক্তরাষ্ট্রে বেপরোয়া গুলির আঘাতে নিহত ব্রিটিশ বিজ্ঞানী উইল না থাকলে অপুত্রক বাবার সম্পত্তির উত্তরাধিকারী মেয়ে: ভারতের সুপ্রিম কোর্ট মাঝ সাগরে নৌকাতে সন্তান জন্ম দিলেন অভিবাসী মা বছরে ৪ লাখ বিদেশি শ্রমিক নেবে জার্মানি জোকোভিচের মালিকানায় তৈরি হচ্ছে কোভিডের ওষুধ অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিস্ট্যান্স এখন বিশ্বব্যাপী মৃত্যুর অন্যতম কারণ পাঁচ সপ্তাহ বয়সে ‘খারাপভাবে’ কোভিড আক্রান্ত হয়েছিল প্রধানমন্ত্রীর মেয়ে রোমি বিলেতে বাড়ি বেচাকেনা: মর্গেজ ভ্যালুয়েশন রাজকীয় দায়িত্ব হারাতে চলেছেন প্রিন্স হ্যারি ও অ্যান্ড্রু!

সুগন্ধা নদীতে লঞ্চে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড

নিউজ ডেস্ক
  • শনিবার, ২৫ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ৭১

ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড কবলিত লঞ্চে প্রায় অর্ধশতাধিক মৃত, ও শতাধিক আহত। শুক্রবার ভোর রাত আনুমানিক ৩টায় ঢাকা থেকে বরগুনাগামী ঝালকাঠিতে এমভি অভিযান-১০ লঞ্চে বিকট শব্দে বিস্ফোরণের পর আগুন লাগে।

শুক্রবার দুপুরে লঞ্চ মালিক হাম জালালের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, লঞ্চের সুপারভাইজার আনোয়ার ভোর রাত আনুমানিক ৩টার দিকে ফোন করে প্রথম অগ্নিকাণ্ডের খবর দেয়।

কর্মচারী আনোয়ারের খবরের বরাতে তিনি আরো বলেন, প্রথমে দোতলায় একটা বিকট শব্দে বিস্ফোরণ হয়, সঙ্গে সঙ্গে কেবিনে আর লঞ্চের পেছনের বিভিন্ন অংশে আগুন লাগে। তারপর তৃতীয় তলার কেবিন ও নিচতলায় ছড়িয়ে পড়ে আগুন। তবে কিভাবে আগুন লাগে এটা জানা যায়নি।

এদিকে বিডি নিউজের বরাতে জানা যায়, তাদের এক প্রশ্নের জবাবে লঞ্চ মালিক হাম জালাল বলেন, ওই লঞ্চে অন্তত ২১টি অগ্নি নির্বাপক যন্ত্র ছিল, কিন্তু এত দ্রুত আগুন ছড়িয়ে পড়ে যে সময় পাওয়া পায়নি।

লঞ্চে কোনো যান্ত্রিক ত্রুটি ছিল না দাবি করে তিনি বলেন, ইঞ্জিনে আগুন লাগলে কখনো পুরো জাহাজে আগুন ছড়িয়ে পড়ে না। বিকট শব্দে দোতলা থেকে আগুন ছড়িয়ে পড়ে ইঞ্জিন ও কেবিনের দিকে। একটি পাইপ গেছে ইঞ্জিন থেকে, সেখানে প্রথম বিস্ফোরণ হয় বলে আনোয়ার আমাকে জানিয়েছে।

হাম জালাল এমভি অভিযান-১০, ৩ ও ৫ লঞ্চের মালিক।

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমার কোনো লঞ্চের ইন্সুরেন্স নেই। আমার কেন, কারও কোনো লঞ্চে ইন্সুরেন্স নেই।

এদিকে, অগ্নিকাণ্ডের তদন্তে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ পৃথক দুটি কমিটি গঠন করেছে। তিন দিনের মধ্যে কমিটিকে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

শুক্রবার গভীর রাত ৩টার দিকে ঢাকা থেকে ২৫০ কিলোমিটার দক্ষিণে ঝালকাঠি জেলার সদর উপজেলার উপকূলে সুগন্ধা নদীর মাঝখানে ৮০০ যাত্রী নিয়ে ‘অভিযান-১০’ লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় অন্তত ৪০ জন নিহত ও ৭২ জন আহত হয়েছেন।

আহত ৭২ জনের মধ্যে গুরুতর দগ্ধ ৬৬ জনকে বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

শেবাচিমের সহকারী পরিচালক ডা. মনিরুজ্জামান বলেন, ৫০ শতাংশ পর্যন্ত পুড়ে যাওয়া ৬৬ জনের মধ্যে ১৮ জন নারী। আমাদের কাছে কোনো ডেডিকেটেড বার্ন ইউনিট না থাকায় তিনজন নারী ও চারজন পুরুষকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে।

তবে ইউএনবি বরিশাল প্রতিনিধি জানান, আহতদের মধ্যে দুজনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা গেছেন।

এরই মধ্যে দুর্ঘটনাকবলিত লঞ্চটিকে তীরে আনা হয়েছে।

 

২৫ ডিসেম্বর ২০২১
নিউজ ডেস্ক

Leave a Reply

আরও পড়ুন...

ফেসবুকে আমরা…

আর্কাইভ