1. robin.nasif@live.com : নিউজ ডেস্ক :
  2. sanjanafariha@gmail.com : Fariha : Sanjana Fariha
  3. farjulcreative@gmail.com : নিউজ ডেস্ক : Farjul Islam
  4. mh2mukul@gmail.com : নিউজ ডেস্ক : M Moinul Hossain
  5. nh.tiash@gmail.com : Nawshad Tiash : Nawshad Tiash
প্রকাশ্যে স্ত্রী ও যুবককের পর পালাতে থাকা শিশুসন্তানকে গুলি করে হত্যা, এএসআই গ্রেফতার TV3 BANGLA
শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১, ০৩:০৫ পূর্বাহ্ন

প্রকাশ্যে স্ত্রী ও যুবককের পর পালাতে থাকা শিশুসন্তানকে গুলি করে হত্যা, এএসআই গ্রেফতার

নিউজ ডেস্ক
  • রবিবার, ১৩ জুন, ২০২১
  • ২৪৯
ঘটনাস্থল

কুষ্টিয়ায় প্রকাশ্যে সড়কের পাশে স্ত্রী-সন্তান ও এক যুবককে গুলি করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে এক সহকারী উপপরিদর্শকের (এএসআই) বিরুদ্ধে। ওই এএসআইয়ের নাম সৌমেন রায়। তাঁকে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

 

রোববার (১৩ জুন) সকাল ১১টায় ম.আ. রহিম সড়কের (পিটিআই রোড) কাস্টমস অফিসের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

 

নিহতরা হলেন- কুমারখালী উপজেলার সাওতা গ্রামের বাসিন্দা মেজবার খানের ছেলে বিকাশ কর্মী শাকিল খান (২৮), আসমা খাতুন (৩৪) ও শিশু রবিন (৭)।

 

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. তাপস কুমার সরকার নিশ্চিত করে জানান, রোববার বেলা ১১টার দিকে গুলিবিদ্ধ এক নারী, শিশু ও একজন পুরুষকে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে এলে সেখানে দায়িত্বরত চিকিৎসক তিনজনকেই মৃত পান।

 

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, বেলা ১১টার দিকে কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ মহাসড়কের কাস্টমস মোড়ে তিনতলা একটি ভবনের সামনে এক নারী চার বছরের ছেলেকে নিয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এ সময় সেখানে এক পুরুষ ছিলেন। হঠাৎ এক ব্যক্তি প্রথমে ওই নারীর মাথায় গুলি করেন। এরপর পাশে থাকা পুরুষের মাথায় গুলি করেন। ভয়ে শিশুটি দৌড়ে পালাতে গেলে তাকেও ধরে মাথায় গুলি করে। আশপাশের লোকজন ওই ব্যক্তিকে ধরতে গেলে তিনি দৌড়ে তিনতলা ভবনের ভেতরে ঢুকে পড়েন।

 

এরপর লোকজন জড়ো হয়ে ওই ভবন লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু করেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। গুলিবিদ্ধ ব্যক্তিদের উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায় পুলিশ। জরুরি বিভাগের চিকিৎসক নারীকে মৃত ঘোষণা করেন। অস্ত্রোপচারকক্ষে গুলিবিদ্ধ পুরুষ ও শিশুর মৃত্যু হয়।

 

কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে সহকারী পুলিশ পরিদর্শক (এএসআই) সৌমেন কুমারকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। আটক সৌমেন সম্প্রতি হালসা ক্যাম্প থেকে খুলনার ফুলতলায় বদলি হন।

 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কুষ্টিয়া পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে প্রথম আলো বলে, এএসআই সৌমেন রায় খুলনার ফুলতলা থানায় কর্মরত। পুলিশের ধারণা, এএসআই সৌমেনকে দেওয়া পিস্তল দিয়ে তিনি হত্যাকাণ্ডের এ ঘটনা ঘটিয়েছেন। ওই পিস্তল জব্দ করা হয়েছে।

 

১৩ জুন ২০২১
নিউজ ডেস্ক

Leave a Reply

আরও পড়ুন...

ফেসবুকে আমরা…

আর্কাইভ